Ads

Desk

সংসদ কি শেখ পরিবারের প্রামাণ্যচিত্র দেখানোর জায়গা?

অ্যানালাইসিস বিডি ডেস্ক

জাতীয় সংসদের গুরুত্বপূর্ণ অধিবেশন হলো বাজেট অধিবেশন। বিস্তারিত…

প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যে ক্ষুব্ধ আলেম সমাজ

  • Jun 13, 2019

অ্যানালাইসিস বিডি ডেস্ক

মুসলিম নারীদের পর্দাকে কটাক্ষ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেয়া বক্তব্যে প্রচন্ড ক্ষুব্ধ বিস্তারিত…

দুদকেই দুর্নীতিবাজদের বসবাস!

  • Jun 12, 2019

অ্যানালাইসিস বিডি ডেস্ক

অনুসন্ধানের মাধ্যমে দুর্নীতিবাজদের চিহ্নিত করার লক্ষ্য নিয়েই গঠন করা হয়েছিল দুর্নীতি দমন কমিশন বিস্তারিত…

সরকারের আশ্রয়েই আছেন ওসি মোয়াজ্জেম!

  • Jun 11, 2019

অ্যানালাইসিস বিডি ডেস্ক

ফেনীর সোনাগাজী সিনিয়র মাদরাসার ছাত্রী নুসরাত জাহান রাফিকে নির্মমভাবে আগুনে পুড়িয়ে হত্যার বিচার নিয়ে সরকারের মুখোশ ধীরে ধীরে খসে পড়ছে বিস্তারিত…

এবার নারীদের মোজা ও নেকাব পরা নিয়ে কটাক্ষ করলেন প্রধানমন্ত্রী! (ভিডিও)

  • Jun 10, 2019

অ্যানালাইসিস বিডি ডেস্ক

পৃথিবীর তৃতীয় বৃহত্তর মুসলিম দেশ হল আমাদের এই বাংলাদেশ বিস্তারিত…

কাদেরের ‘স্বস্তির ঈদে’ সড়কে ৫৪ মৃত্যু!

  • Jun 8, 2019

অ্যানালাইসিস বিডি ডেস্ক

ঈদুল ফিতরের এক সপ্তাহ আগ থেকেই আওয়ামী লীগের সাধারণ বিস্তারিত…

মুসলিম নিধন করতেই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর পদে অমিত শাহ?

  • Jun 2, 2019

অ্যানালাইসিস বিডি ডেস্ক

ভারতে ১৭তম লোকসভা নির্বাচনে বিপুল বিজয়ের পর সরকার গঠন বিস্তারিত…

ছাত্রলীগের টেন্ডার ছিনতাই ও চাঁদাবাজিতে হল নির্মান বন্ধ!

  • May 30, 2019

অ্যানালাইসিস বিডি ডেস্ক

খুন, হত্যা, চুরি, ডাকাতি, ধর্ষণ, দখল, মারামারির পর এবার চাঁদাবাজি বিস্তারিত…

ইসলামী রাষ্ট্র কেন অত্যাবশ্যকীয়?

  • May 30, 2019

আহমেদ আফগানী

আজকাল অনেক মুসলিম ইসলামী রাষ্ট্রের প্রয়োজনীয়তা খুঁজে পাচ্ছেন না। এই নিয়ে তারা সমাজে নানান বিভ্রান্তি তৈরি করছেন। তাই আজকের আলোচনা ইসলামী রাষ্ট্রের কেন প্রয়োজন? মুসলমানরা যদি মুসলমান হিসেবে জীবনযাপন করতে চায়, তবে তাদের নিজেদের গোটা জীবনকে আল্লাহর আনুগত্যের অধীন করে দিতে হবে এবং নিজেদের ব্যক্তিগত ও সামষ্টিক জীবনের সকল বিষয়ের ফয়সালা কেবলমাত্র আল্লাহর আইন ও শরীয়াহ মোতাবেক করতে হবে, এছাড়া দ্বিতীয় কোনো বিকল্প নেই।

প্রথমত :
আপনি আল্লাহ রাব্বুল আলামীনের প্রতি ঈমান পোষণ করার ঘোষণা করবেন আর জীবনের সামগ্রিক বিষয়াদি পরিচালনা করবেন আল্লাহকে বাদ দিয়ে অন্যদের আইন অনুযায়ী, ইসলাম কোনো অবস্থাতেই এমনটি বরদাশত করতে প্রস্তুত নয়। এর চাইতে বড় স্ববিরোধিতা আর কিছু হতে পারেনা। এই স্ববিরোধিতাকে বরদাশত করার জন্যে নয়, নির্মূল করার জন্যে ইসলামের আবির্ভাব ঘটেছে। আমরা যে ইসলামী রাষ্ট্র ও শাসনতন্ত্র দাবী করছি, তার পেছনে এই অনুভূতিই কাজ করছে যে, মুসলমান যদি আল্লাহর আইনই মেনে না চলে, তবে তো তার মুসলমান হবার দাবীই সন্দেহযুক্ত হয়ে পড়ে। গোটা কুরআনই এই নির্জলা সত্য কথাটির সাক্ষ্য দিচ্ছে।

কুরআনের দৃষ্টিতে আল্লাহই সমস্ত জগত ও সাম্রাজ্যের মালিক। তিনি স্রষ্টা, সৃষ্টিজগত তাঁর। তাই স্বাভাবিকভাবেই শাসনের অধিকার কেবল তাঁরই থাকা উচিত। তাঁর রাজ্যে তাঁর সৃষ্টির উপর তাঁর ছাড়া অপর কারো শাসন সার্বভৌমত্ব চলা মূলতই ভ্রান্ত। সঠিক পন্থা কেবল একটিই। তাহলো, তাঁর খলীফা ও প্রতিনিধি হিসেবে তাঁর প্রদত্ত আইন ও বিধান অনুযায়ী শাসন পরিচালিত হবে এবং কার্যসম্পাদিত হবে। তাঁর অকাট্য ঘোষণা হলো :

ক. বলোঃ হে সাম্রাজ্য ও সার্বভৌমত্বের মালিক আল্লাহ! তুমি যাকে চাও রাজ্যক্ষমতা দান করো। আর যার কাছ থেকে ইচ্ছা ক্ষমতা কেড়ে নাও। [সূরা আলে ইমরানঃ ২৬]
খ. তিনিই আল্লাহ, তোমাদের প্রভূ প্রতিপালক। গোটা সাম্রাজ্য তাঁর। [সূরা ফাতিরঃ ১৩]
গ. রাজত্বে তাঁর কোনো অংশীদার নেই। [সূরা বনী ইসরাঈলঃ ১১১]
ঘ. সুতরাং সমস্ত কর্তৃত্ব সমুচ্চ মহান আল্লাহর। [সূরা আল মুমিনঃ ১২]
ঙ. তিনি তাঁর কর্তৃত্বে কাউকেও অংশীদার বানাননা। [সূরা আল কাহাফঃ ২৬]
চ. সাবধান! সৃষ্টি তার, কর্তৃত্বও তাঁর। [সূরা আ’রাফঃ ৫৪]
ছ. ওরা জিজ্ঞেস করছেঃ কর্তৃত্বে আমাদেরও অংশ আছে কি? বলোঃ কর্তৃত্ব সম্পূর্ণরূপে আল্লাহর জন্যে নির্দিষ্ট। [সূরা আলে ইমরানঃ ১৫৪]

দ্বিতীয়ত :
এই মূলনীতির ভিত্তিতে আইন প্রণয়নের অধিকার মানুষের কাছ থেকে কেড়ে নেয়া হয়েছে। কারণ, মানুষ তো হলো আল্লাহর সৃষ্টি এবং তাঁর রাজত্বের প্রজা। তাঁর দাস এবং তাঁর কর্তৃত্ব ও সার্বভৌমত্বের অধীন। তাই মানুষের কাজ হলো কেবল তার স্রষ্টা রাজাধিকারাজের আইন মেনে চলা। এক্ষেত্রে তাঁর প্রদত্ত আইনের সীমার মধ্যে অবস্থান করে ইজতিহাদ ও গবেষণার মাধ্যমে প্রাসংগিক বিধি প্রণয়নের নিয়ন্ত্রিত অধিকারই কেবল মানুষের রয়েছে। তাছাড়া আল্লাহ এবং তাঁর রাসূল সা. যেসব বিষয়ে প্রত্যক্ষ ও সরাসরি কোনো হুকুম প্রদান করেননি, সেসব ক্ষেত্রেও শরীয়তের প্রাণসত্তা এবং ইসলামের প্রকৃতির সাথে সামঞ্জস্যশীল বিধি প্রণয়নের অধিকারও মুমিনদের দেয়া হয়েছে। কেননা এসব ক্ষেত্রে আল্লাহ ও রসূলের সরাসরি কোনো বক্তব্য না থাকাটাই একথার প্রমাণ যে এসব ক্ষেত্রে নিয়ম বিধি প্রণয়নের আইনগত অধিকার মুমিনদের দেয়া হয়েছে। কিন্তু যে মৌলিক কথাটি স্পষ্ট থাকতে হবে, তা হলো, আল্লাহ প্রদত্ত আইনের সীমারেখার আওতামুক্ত হয়ে যে ব্যক্তি বা সংস্থা নিজেই স্বাধীনভাবে কোনো আইন প্রণয়ন করবে, কিংবা অপর কারো রচিত আইন মেনে চলবে, সে তাগুত, বিদ্রোহী এবং আল্লাহর আনুগত্য থেকে বিচ্যুত। আর এমন ব্যক্তির কাছে যে-ই ফায়সালা ও সিদ্ধান্ত চাইবে এবং তার প্রদত্ত ফায়সালা ও সিদ্ধান্ত মেনে নেবে সেও বিদ্রোহের অপরাধে অপরাধী।

এসব ফায়সালা স্বয়ং আল্লাহরঃ
ক. আর তোমাদের মুখ যেসব জিনিসের কথা উচ্চারণ করে, সেসব বিষয় তোমরা মনগড়াভাবে বলোনা যে, এটা হালাল আর এটা হারাম। [সূরা আন নহলঃ ১১৬]
খ. তোমাদের রবের পক্ষ থেকে যা কিছু অবতীর্ণ হয়েছে, তারই অনুসরণ করো। তাঁকে বাদ দিয়ে অন্য কোনো [মনগড়া] কর্তা ও পৃষ্ঠপোষকের অনুসরণ করো না। [সূরা আ’রাফঃ ৩]
গ. আল্লাহর অবতীর্ণ বিধান অনুযায়ী যারা ফায়সালা করেনা, তারা কাফির। [সূরা আল মায়িদাঃ ৪৪]
ঘ. হে নবী! তুমি সেইসব লোকদের দেখনি যারা হিদায়াতের প্রতি ঈমান এনেছে বলে দাবী করে যা তোমার এবং তোমার পূর্ববর্তী নবীদের প্রতি অবতীর্ণ করা হয়েছে? কিন্তু তারা নিজেদের যাবতীয় বিষয়ে ফায়সালা করিয়ে নিতে চায় তাগুতদের দিয়ে। অথচ তাদের নির্দেশ দেয়া হয়েছিলো তাগুতকে অস্বীকার করতে। শয়তান চায় তাদের বিভ্রান্ত করতে [সূরা আন নিসাঃ ৬০]

তৃতীয়ত :
বিশ্বজগতের মালিক আল্লাহ তা’য়ালার এই পৃথিবীতে সঠিক রাষ্ট্র ব্যবস্থা ও বিচার ব্যবস্থা কেবল সেটাই, যা তাঁর নবী রসূলদের মাধ্যমে প্রেরিত আইনের ভিত্তির উপর প্রতিষ্ঠিত। আর এর নাম হলো, খিলাফত।

কুরআন এই প্রসঙ্গে যা বলে-
ক. আমি যে রসূলকেই পাঠিয়েছি, এজন্যেই পাঠিয়েছি, যেনো আল্লাহর নির্দেশের ভিত্তিতে তার আনুগত্য করা হয়। [সূরা আন নিসাঃ ৬৪]
খ. হে নবী! পূর্ণ সত্যতার সাথে আমরা এ কিতাব তোমার প্রতি নাযিল করেছি, যাতে করে আল্লাহর দেখানো সত্যালোকের মাধ্যমে তুমি মানুষের মধ্যে ফায়সালা করতে পারো। [সূরা আন নিসাঃ ১০৫]
গ. আর আল্লাহর অবতীর্ণ বিধান অনুযায়ী তুমি তাদের মাঝে ফায়সালা করো। তাদের ইচ্ছা বাসনার অনুসরণ করো না। সাবধান থেকো, তারা যেনো তোমাকে ফিতনার নিমজ্জিত করে আল্লাহর অবতীর্ণ বিধান থেকে এক বিন্দুও বিভ্রান্ত করতে না পারে। [সূরা আল মায়িদাঃ ৪৯]
ঘ. তারা কি তবে জাহিলিয়্যাতের বিধান চায়? আর নিশ্চিত বিশ্বাসী কওমের জন্য বিধান প্রদানে আল্লাহর চেয়ে কে অধিক উত্তম?। [সূরা আল মায়িদাঃ ৫০]
ঙ. হে দাউদ! আমরা তোমাকে পৃথিবীতে খলীফা বানিয়েছি। সুতরাং তুমি লোকদের মধ্যে সত্যের ভিত্তিতে শাসন চালাও। ইচ্ছা বাসনার অনুসরণ করো না। তাহলে তা তোমাকে আল্লাহর পথ থেকে বিচ্যুত করে দেবে। [সূরা সোয়াদঃ ২৬]

চতুর্থত :
যে কোনো ধরণের শাসনব্যবস্থাই বাতিল যদি সেসব ব্যবস্থা আল্লাহর বিধান অনুযায়ী না হয়। এসব শাসনব্যবস্থার ধরন ও প্রকৃতির মধ্যে যতোই বিভিন্নতা থাকুকনা কেনো, তাতে কিছু যায় আসেনা। এগুলোর সমস্ত কর্মকান্ড ভিত্তিহীন, বৈষম্যপূর্ণ ও ভ্রান্ত। শাসন পরিচালনা এবং রায় প্রদানের মূলত তাদের কোনো বৈধ ভিত্তি নেই।

মুসলিমরা নিজেদের প্রকৃত মালিক আল্লাহর বিদ্রোহীদের আনুগত্য করা এবং তাদের কাছে নিজেদের বিষয়াদির ফায়সালা চাওয়া মুমিনদের কাজ নয়। যদি কেউ এমনটি করে, তাবে নিজেকে মুমিন ও মুসলিম দাবী করা সত্ত্বেও সে আল্লাহর অনুগতদের দল থেকে বিচ্যুত। একথা সরাসরি বিবেক বুদ্ধির সাথেও সাংঘর্ষিক যে, কোনো সরকার একটি গোষ্ঠীকে বিদ্রোহী বলেও আখ্যায়িত করবে, আবার স্বীয় প্রজাদের উপর সেই বিদ্রোহীদের কর্তাগিরি করাকেও বৈধ বলে মেনে নেবে এবং প্রজাদের তাদের শাসন মেনে চালারও অনুমতি দেবে।

দেখুন কুরআন কি বলে :
ক. হে নবী, তাদের বলোঃ আমরা কি তোমাদের বলবো, নিজেদের আমলের দিক থেকে সবচেয়ে ব্যর্থ ও অসফল লোক কারা? তারা হলো সেইসব লোক, পার্থিব জীবনে যাদের যাবতীয় চেষ্টা সাধনা বিপথগামী হয়েছে। [অর্থাৎ মানুষের চেষ্টাসাধনার মূল উদ্দেশ্য হাসিলের পথে ধাবিত হয়েছে।] অথচ, তারা মনে করছে যে তারা দারুণ ভালো কাজ করছে। এরা হলো সেইসব লোক, যারা তাদের মালিকের আয়াতসমূহ মেনে নিতে অস্বীকার করেছে এবং তাঁর নিকট উপস্থিত হবার বিষয়টিও বিশ্বাস করেনি। তাই তাদের যাবতীয় আমল নিষ্ফল [শূণ্য] হয়ে গেলো। কিয়ামতের দিন আমরা তাদের কোনো গুরুত্বই দেব না। [সূরা আল কাহাফঃ ৩-৫]

খ. এ হচ্ছে আ’দ [জাতি], যারা তাদের প্রভুর বিধান মানতে অস্বীকার করেছিলো এবং তাঁর রাসূলদের আনুগত্য পরিহার করেছিলো আর অনুগামী হয়েছিলো সত্যদ্বীন অমান্যকারী প্রত্যেক দাম্ভিক দুর্দন্ড দুশমনের। [সূরা হুদঃ ৫৯]

গ. আমরা আমাদের নিদর্শন ও সুস্পষ্ট প্রমাণাদিসহ মূসাকে ফিরাউন আর তার রাজন্যবর্গের প্রতি পাঠিয়েছিলাম। কিন্তু তারা ফিরাউনের নির্দেশেরই অনুগামী হলো, অথচ ফিরাউনের নির্দেশ সঠিক ছিলোনা । [সূরা হুদঃ ৯২]

ঘ. এমন কোনো ব্যক্তির আনুগত্য করোনা, যার অন্তরকে আমরা আমাদের স্মরণ থেকে গাফেল করে দিয়েছি এবং যে স্বীয় কামনা বাসনার অনুগামী হবার নীতি গ্রহণ করেছে আর যার কর্মনীতিই সীমালংঘমূলক। [সূরা আল কাহাফঃ ২৮]
ঙ. হে মুহাম্মদ! বলো, আমার প্রভু অশ্লীলতাকে তার গোপনীয় ও প্রকাশ্য সকল দিক সমেত, পাপ কাজকে, অন্যায়ভাবে পরস্পরের প্রতি বাড়াবাড়ি করাকে এবং আল্লাহ প্রদত্ত প্রমাণ ছাড়াই কাউকেও আল্লাহর প্রতিপক্ষ বানানোকে হারাম করে দিয়েছেন। [সূরা আল আ’রাফঃ ৩৩]

চ. সার্বভৌম ক্ষমতা কেবলমাত্র আল্লাহর। তাঁর নির্দেশ হলো, তোমরা তাঁর ছাড়া আর কারো গোলামী করোনা। [ সূরা ইউসূফঃ ৪০]

ছ. সঠিক পথ স্পষ্টভাবে দেখিয়ে দেবার পরও যে ব্যক্তি রাসূলের সা. সাথে বিরোধ করবে এবং মুমিনদের নীতি আদর্শের বিপরীত পথে চলবে, তাকে আমরা সেদিকে চালাবো, যেদিকে সে নিজেই মোড় নিয়েছে। আর তাকে আমরা জাহান্নামে নিক্ষেপ করবো, যা খুবই নিকৃষ্ট স্থান। [সূরা আন নিসাঃ ১১৫]

এগুলো হলো কুরআনের অকাট্য সুস্পষ্ট নির্দেশনাবলী। এরকম আয়াত আরো রয়েছে। এগুলোতে সন্দেহ সংশয়ের কোনো অবকাশ নেই।

পঞ্চমত :
মুসলমানরা ততক্ষন পর্যন্ত তাদের ঈমানের দাবী পূরণ করতে পারেনা, যতক্ষণ না তারা ইসলামী সমাজ ও রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করবে। আল্লাহর আইনের বিজয় ও প্রতিষ্ঠা ছাড়া মুসলমানরা পরিপূর্ণ মুসলমান হিসেবে জীবন যাপন করতে পারেনা। তাই তাদের দ্বীন ও ঈমানের দাবীই হলো ইসলামী রাষ্ট্রব্যবস্থা প্রতিষ্ঠিত করা এবং নিজেদের যাবতীয় বিষয়াদি আল্লাহর আইনের ভিত্তিতে মীমাংসা ও পরিচালিত করা। আল্লাহর সার্বভৌমত্বের ভিত্তিতে রাষ্ট্রব্যবস্থা প্রতিষ্ঠার জন্যেই নবীগণ প্রেরিত হয়েছেন।

সে জন্যেই তো হিজরতের পূর্বে নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের পবিত্র জবানীতে এই দোয়া করানো হয়েছে :

“প্রার্থনা করোঃ প্রভূ, আমাকে যেখানেই নিয়ে যাবে সত্যতার সাথে নিয়ে যেয়ো। আর যেখানে থেকেই বের করবে সত্যতার সাথেই বের করো। আর তোমার পক্ষ থেকে একটি ক্ষমতাসীন কর্তৃত্বকে আমার সাহায্যকারী বানিয়ে দাও।” [সূরা বনী ইসরাঈলঃ ৮০]

অর্থাৎ, হয় আমাকেই ক্ষমতা দান করো, নয়তো অপর কোনো রাষ্ট্রকে আমার সাহায্যকারী বানিয়ে দাও, যেনো আমি তার ক্ষমতার সাহায্য নিয়ে বিশ্বের এই মহাবিপর্যয়কে প্রতিরোধ ও সংশোধন করতে পারি। যেনো অশ্লীলতা ও পাপের এই প্লাবনের মোকাবিলা করতে পারি। যেনো তোমার সুবিচারপূর্ণ আইনকে কার্যকর করতে পারি। হাসান বসরী এবং কাতাদা (র) এ আয়াতের এই তাফসীরই করেছেন। ইবনে কাসীর এবং ইবনে জরীরের মতো মর্যাদাবান মুফাসসিরগণও এ মতই প্রকাশ করেছেন।

আল্লাহ তায়ালা আরো বলেন এদেরকে যদি আমি পৃথিবীতে শাসন কর্তৃত্ব ও রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা দান করি, তাহলে এরা নামায কায়েম করবে, যাকাত দিবে, সৎকাজের নির্দেশ দেবে এবং অন্যায় ও পাপ কাজ হতে লোকদের বিরত রাখবে।” [সূরা আল হাজ্জ: ৪১]

এ থেকে প্রমাণ হলো, ইসলাম বিশ্বে যে সংস্কার সংশোধন চায়, তা শুধুমাত্র উপদেশ নসীহতের মাধ্যমে সম্পন্ন হতে পারেনা। তা কার্যকর করার জন্যে রাষ্ট্রক্ষমতাও অপরিহার্য। তাছাড়া আল্লাহ নিজেই যখন তার নবীকে এই দোয়া শিক্ষা দিয়েছেন, তখন তা থেকে তো একথা পরিষ্কারভাবেই প্রমাণ হয় যে, আল্লাহর দীনকে প্রতিষ্ঠা করা, তাঁর শরীয়াকে কার্যকর করা এবং তার আইন ও বিধানকে বাস্তবায়িত করার উদ্দেশ্যে রাষ্ট্র ক্ষমতা পেতে চাওয়া এবং তা পাওয়ার জন্যে চেষ্টা সংগ্রাম করা যে শুধু জায়েয তাই নয়, বরঞ্চ অত্যাবশ্যকীয়।

যারা এই কাজকে দুনিয়া পূজা বা দুনিয়াদারী বলে মনে করে, তারা সাংঘাতিক ভুলের মধ্যে নিমজ্জিত। তবে একথা সত্য, যদি কেউ নিজের জন্যে রাষ্ট্র ক্ষমতা দখল করতে চায়, তবে তা নিসন্দেহে দুনিয়া পূজা। কিন্তু ইসলামকে প্রতিষ্ঠিত ও কার্যকর করার জন্যে রাষ্ট্র ক্ষমতা পেতে চাওয়া কোনোক্রমেই দুনিয়া পূজা হতে পারেনা। বরং আল্লাহর গোলামী করার প্রকৃত দাবীই এটা।

বি. দ্র. : এখানে অনেকগুলো কুরআনের আয়াত সংকলন করা হয়েছে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই পুরো আয়াত তুলে ধরা যায়নি প্রবন্ধের আকার বড় হওয়ার আশংকায়। আপনারা মেহেরবানি করে কুরআন থেকে আয়াতগুলো পড়ে নিবেন। বেশ চমৎকৃত হবেন একথা নিশ্চিত।

লেখকের ফেসবুক থেকে

৩০ টাকার ইফতারি খেয়ে খালেদার সঙ্গে মশকরা!

  • May 28, 2019

অ্যানালাইসিস বিডি ডেস্ক

কারাবন্দি বেগম খালেদা জিয়ার সম্মান রক্ষায় মঙ্গলবার বিভিন্ন বিস্তারিত…

দুর্নীতি : চাকরি বাঁচাতে গণস্বাক্ষর নিচ্ছেন সেই আব্দুস সালাম!

  • May 28, 2019

অ্যানালাইসিস বিডি ডেস্ক

ইসলামিক ফাউন্ডেশনের ইতিহাসে সবচেয়ে বিতর্কিত ডিজি সামীম মোহাম্মদ আফজাল কর্তৃক নিযুক্ত ইসলামী ব্যাংক হাসপাতাল মতিঝিলের সেই দুর্নীতিবাজ সুপারিনটেন্ডেন্ট আব্দুস সালাম এখন চাকরি রক্ষায় গণস্বাক্ষর অভিযানে নেমেছেন। গত ২১ মে ২০১৯ তারিখে তার অনিয়ম দুর্নীতির ফিরিস্তি নিয়ে অ্যানালাইসিস বিডিতে একটি দীর্ঘ অনুসন্ধানী প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। এর পর থেকে নিজের চাকরি রক্ষায় হাসপাতালের কনসাল্টেন্ট, কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের কাছ থেকে নিজের পক্ষে জোরপূর্বক গণস্বাক্ষর নিচ্ছেন বলে খবর পাওয়া গেছে। এছাড়াও তার দুর্নীতির বিরুদ্ধে সাংবাদিকদের কাছে তথ্য দেয়ায় কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের শাসাচ্ছেন বলেও জানা গেছে।

অনুসন্ধানে জানা যায়, গত বছরের এপ্রিলে ইসলামী ব্যাংক ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয় ইসলামিক ফাউন্ডেশনের ডিজি সামীম মোহাম্মদ আফজালকে। এরপর থেকেই সারাদেশে স্বাস্থ্যসেবায় সুনাম অর্জনকারী ইসলামী ব্যাংক হাসপাতালের বেশ কয়েকটি শাখায় নিয়ম নীতি উপেক্ষা করে নিজের পছন্দের কিছু ব্যক্তিকে নিয়োগ দেন তিনি। তাদের মধ্যে অন্যতম ডা. আব্দুস সালাম। সামীম আফজালের প্রত্যক্ষ নির্দেশে ইসলামী ব্যাংক হাসপাতাল মতিঝিলের সুপারিনটেন্ডেন্ট হিসেবে গত ১ মার্চ ২০০৯ তারিখে তিন মাসের জন্য তাকে অস্থায়ী নিয়োগ দেয়া হয়। কিন্তু এই অস্থায়ী নিয়োগ পেয়েই অনিয়ম আর দুর্নীতির হাট খুলে বসেন ভূয়া মুক্তিযোদ্ধা ডা. আব্দুস সালাম। অল্প সময়ের ব্যবধানে কমিশন বাণিজ্য, চাঁদাবাজি, স্বজনপ্রীতি, নারী কেলেঙ্কারিসহ অভিযোগের পাহাড় জমেছে এই করিৎকর্মা ব্যক্তির বিরুদ্ধে। আর এসব অনিয়মের খবর প্রকাশ হয়ে পড়ায় এবার চাকরি রক্ষায় জোরপূর্বক গণস্বাক্ষর সংগ্রহের অভিযানে নেমেছেন আব্দুস সালাম।

সম্প্রতি অনিয়মের অভিযোগ মাথায় নিয়ে ইসলামী ব্যাংক ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান পদ থেকে সামীম আফজাল বিদায় নিলেও তার পছন্দের নিযুক্ত ডা. আব্দুস সালামকে এই গুরুত্বপূর্ণ পদে বহাল রাখতে তার তৎপরতা রয়েছে বলে জানা যায়।

আব্দুস সালামের বিরুদ্ধে অভিযোগ করে কর্মকর্তারা জানান, নিজ পুত্র সুলতান মাহমুদ শাকিলকে ব্যবহার করে বিভিন্ন প্রকার হুমকি ধামকি দিয়ে হাসপাতালের কর্মকর্তা কর্মচারীদের কাছ থেকে একাধিক স্থানে স্বাক্ষর নিচ্ছেন তিনি। যেখানে দুর্নীতির সুস্পষ্ট অভিযোগে অভিযুক্ত ডা. আব্দুস সালামকে নির্দোষ ও ষড়যন্ত্রের শিকার বলে উল্লেখ করা হচ্ছে।

এই গণস্বাক্ষর অভিযানে আব্দুস সালামের স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসাবে তার ছেলে সুলতান মাহমুদ শাকিলের নেতৃত্বে কাজ করছে ব্রাদার তোজাম্মেল, ব্রাদার খাদেম, নার্সিং সুপারভাইজার জাহানারা আক্তার ও রিসিপশনিস্ট আক্তার হোসেন।

এদের মধ্যে নিজ পুত্র সুলতান মাহমুদ শাকিলকে মেইনটেইনেন্স বিভাগে ও রিসিপশনিস্ট আক্তার হোসেনকে নিয়ম বহির্ভূতভাবে নিয়োগ দিয়েছেন আব্দুস সালাম। আর নার্সিং সুপারভাইজার জাহনারা আক্তারের বিরুদ্ধে হাসপাতালের পরিবেশ বিনষ্ট করে সুপার আব্দুস সালামের মনোরঞ্জনের উদ্দেশ্যে বহিরাগত ও অভ্যন্তরীন কিছু নারীদের নিয়ে তার নির্জন কক্ষে আড্ডা ফূর্তির আয়োজনের অভিযোগ রয়েছে।

হাসপাতালের কর্মচারীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, এরা প্রত্যেকেই আব্দুস সালামের হয়ে বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন নামের একটি ভূঁইফোড় সংগঠনের জন্য নিয়মিত চাঁদাবাজি অব্যাহত রেখেছে।

এমনকি অস্থায়ী সুপার আব্দুস সালামের অনিয়ম দুর্নীতির খবর প্রকাশিত হওয়ার পরেও নার্সিং সুপারভাইজার জাহনারা আক্তার নার্সদের কাছ থেকে বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের নামে জোরপূর্বক চাঁদাবাজি অব্যাহত রেখেছে।

অ্যানালাইসিস বিডিতে আব্দুস সালামের দুর্নীতি ও অনিয়মের খবর প্রকাশিত হওয়ার পর টনক নড়ে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের। তারা ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারে এমন আশঙ্কা থেকে ভালো সাজতে হাসপাতালের স্টাফদের কাছ থেকে জোরপূর্বক নিজের পক্ষে গণস্বাক্ষর নিয়ে নিজেকে নির্দোষ প্রমাণের চেষ্টায় মরিয়া হয়ে উঠেছেন আব্দুস সালাম ও তার সাঙ্গপাঙ্গরা। যারা তার পক্ষে এসব স্বাক্ষর করিয়ে নিচ্ছেন তাদেরকেই মূলত আব্দুস সালাম বিভিন্ন সময় তার দুর্নীতি ও অনিয়মের ক্রীড়নক হিসেবে কাজ করে আসছে।

এই সিন্ডিকেট বাহিনী হাসপাতালের সুনাম অর্জনকারী কর্মকর্তাদের হয়রানির পাশাপাশি প্রাণনাশের হুমকি ধামকিও দিয়ে আসছে।

হাসপাতালের দুর্নীতি অনিয়ম ও বিশৃঙ্খলা দূর করতে দুর্নীতিবাজ আব্দুস সালামের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেছেন সাধারণ কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা। সেই সাথে স্বাস্থ্যসেবার পরিবেশ ফিরিয়ে আনতে কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন বেশ কয়েকজন কনসালটেন্ট।

আরও পড়ুন: আব্দুস সালামের দুর্নীতিতে মতিঝিল ইসলামী ব্যাংক হাসপাতালের রেকর্ড

রমজান মাসে কি ছাত্রলীগ কুত্তা পাগল হয়ে গেছে!

  • May 27, 2019

অ্যানালাইসিস বিডি ডেস্ক

ভোট ডাকাতির ডাকসু নির্বাচনের বৈধতা পাওয়ার জন্যই মূলত সরকারের চাপে বিস্তারিত…